শেষ দশবছর কল্পনা করুন… তারপর আপনার ভোটটি প্রয়োগ করুন

অনলাইনে এক অভূতপূর্ব দৃশ্য দেখা যাচ্ছে। মিডিয়ার বড় নট-নটি থেকে শুরু করে বাচ্চা-গুড়া নট-নটি… সবাই ভোটের প্রচারণায় চলে এসেছেন। জনসাধারনকে চেতনার পক্ষে ভোটের জন্য আহবান জানাচ্ছেন, কাকে ভোট দিলে উন্নয়নের মহাসড়কে গাড়ি ঠিকঠাক চলবে – তার নসিহত দিচ্ছেন।

একটু পিছনে ফিরে দেখার দরকার আছে।

আপনার ব্যাংকের টাকা লুটপাট হয়ে গিয়েছে, আপনি আপনার আমানত ফেরতের আশায় ঘুরেই চলেছেন। আপনি শেয়ারমার্কেটে সর্বস্বান্ত হওয়া ১০ লক্ষ পরিবারের একজন। রাতে বাসায় ফেরার পথে আপনার ভাইকে তুলে নিয়ে গিয়েছে সাদাপোষাকের ‘ভুত’, লাশ ভেসে উঠেছে কোনো নদীতে অথবা লাশ পাওয়া যায়নি – আপনি ছবি নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করেই যাচ্ছেন। অথবা আপনার বোনকে তুলে নিয়েছে সোনার ছেলের দল, আপনার বোন রাস্তাঘাটে ইভটিজিং এর শিকার হয়েছে… বিশেষ দিবস উপলক্ষে রাস্তা বের হয়েছিলেন আর সোনার ছেলেরা আপনাকে উত্যক্ত করেছে, পানি মেরেছে শরীরে, কাপড় টেনেছে… আপনি অক্ষম ক্রোধে ফুঁসেছেন!…

ইতিহাসের সবচেয়ে বেশি দাম দিয়ে কেনা বিদ্যুতের প্রতিটি ইউনিট…রেকর্ডব্রেকিং মেগাওয়াট উৎসব… এরপরও গ্রীষ্মকালে আপনার জীবন জেরবার হয়েছে লোডশেডিংয়ে। বর্ষায় আপনি রাস্তা নয় – জলাবদ্ধ ‘সমুদ্র’ পাড়ি দিয়েছেন। রাতে আপনাকে গুলি করেছে না হয় পিষে মেরেছে এমপি আর ভিআইপিপুত্ররা। আপনার বেতন বাড়েনি, কিন্তু সিন্ডিকেটে বেড়েছে দ্রব্যমূল্য ও পরিবহন ভাড়া, প্রতিবাদ করতে গেলেই ‘ক্ষমতাবান’ মন্ত্রীর পরিবহন শ্রমিকেরা আপনাকে ‘সিরাতুল মুস্তাকিম’ ধরিয়ে দিয়েছে।…

আপনি পরীক্ষার্থী, প্রতিটা পরীক্ষায় আপনার প্রশ্ন হয়েছে ফাঁস… চোখের সামনে দিয়ে প্রশ্ন কিনে আপনার শ্রমকে তুড়ি মেরে ভালো ‘রেজাল্ট’ করেছে আপনার সহপাঠী। বছরের পর বছর ধরে আপনি বেকার, বাজারে কোনো চাকরি নেই। আপনার সহপাঠিকে গেস্টরুমের বাইরে ফেলে ঠান্ডায় সারা রাত ফেলে মারা হয়েছে, ক্যালকুলেটরের জন্য মারা হয়েছে, বারান্দা থেকে ফেলে মারা হয়েছে। আপনারা রাস্তায় নেমেছিলেন কোটা সংস্কারের জন্য, মামলা আর হামলায় আপনার জীবন শেষ হয়ে গেছে। রাস্তায় এসেছিলেন নিরাপদে বাসায় ফেরার দাবীর জন্য, পিটুনি খেয়ে লুকিয়ে যেতে বাধ্য হয়েছেন, আপনাদের চাপা দিয়েও জামিন পেয়ে গেছে হত্যাকারী… অন্যদিকে অনলাইনে ‘উহ’ করলেই মুখোমুখি হয়েছেন মামলা আর হয়রানির।…

এই সময়গুলোতে ‘ঘি-মাখন’ খেয়ে গেছে একটা সুবিধাভোগী শ্রেনী, আপনার নাগরিক অধিকারের কোন দাবী আদায়ে তারা আপনাকে সমর্থন দেয় নি! বরং তাদের দেখা গেছে হাজারমেগাওয়াটের আলোকসজ্জার উৎসবে, যখন ভেতরে ভেতরে সব ফোঁপড়া হয়ে যাচ্ছিলো তখন এদের দেখা গেছে ‘বায়বীয় দেশপ্রেমের’ রেকর্ড বানানোর প্রোগ্রামে! অধিকার আদায়ের সংগ্রামের সময় তাদের দেখা গেছে ‘বাসায় ফিরে যাও’ পোস্ট দিতে।…

দশবছরে খেয়ে খেয়ে ফুলেফেঁপে ওঠা আর অন্যায় সুবিধাভোগকারী ঐ শ্রেনী চায় – তাদের এই ঘি-মাখন অব্যাহত থাকুক… আপনার নাগরিক অধিকার চুলোয় যাক কিন্তু তাদেরটা অক্ষুন্ন থাকুক।…

যদি সুষ্ঠ একটি নির্বাচন হয়, যদি আপনি নির্বিঘ্নে ভোট দিতে যেতে পারেন, যদি আপনার ভোট কোন হাফপেন্টুল বাহিনী না দিয়ে দেয়, অথবা আপনার মৃত আত্মীয়স্বজন যদি আপনার সাথে দেখা না করে ভোট দিয়ে ফেলে… তবে আপনাদের বলবো না যে অমুক পক্ষের শক্তিকে ভোট দিন অথবা অমুক পক্ষের উন্নয়নের মহাসড়কে ২৪০ মাইল/ঘন্টা বেগে উঠে পড়ুন…

শুধু বলবো, একটু চোখ বন্ধ করুন… শেষ দশবছর কল্পনা করুন… আর নিজেকে প্রশ্ন করুন – ‘আমি কি ভালো ছিলাম? আমার পরিবার কি ভালো ছিলো?’
তারপর আপনার ভোটটি প্রয়োগ করুন।

You may also like...

6 Responses

  1. বায়েজিদ ইসলাম says:

    তোর খালেদামা তো একটা ক্রিমিনাল, এই ক্রিমিনালরে যেই সাপোর্ট করে তারাও ক্রিমিনাল, কারন গুণীজন বলে গেছেন অপরাধ যে করে আর অপরাধীদের সহায়তা যারা করে তারা সকলে সমান অপরাধী।

  2. জামাল উদ্দিন says:

    সাহস থাকলে দেশে আয়তো দেখি, তারপর দেখি তোর কতবড়ো হ্যাডম?

  3. সিরাজুল ইসলাম says:

    আরেকবার যদি বিএনপি বিএনপি করিস তাইলে কিন্তু টেংড়ি ভাইঙ্গা দিমু

  4. আব্দুস সাত্তার says:

    হালার পো তোরে না মানা করসিলাম লেখালেখি করতে? তারপরও? দাড়া তোরে মজা বুঝানোর সময় হয়ে গেসে।।

  5. সিকান্দর হক says:

    হ ইতিহাস শুধু তোরাই চুদাইতে পারস, আর কেউ পারেনা? খানকি মাগির পোলা মিথ্যা কথা বলা বন্ধ কইরা লাইনে আয়। পারলে আওয়ামীলীগ জয়েন কর, তাহলে তোরে মাফ কইরা দিমু, আর নাহলে তোরে তোরে পরিবারসুদ্ধা খাইয়্যা দিতে কিন্তু সময় লাগবো না কইয়া দিলাম।

  6. আমিন খান says:

    এর আগে তোরা কি করসিলি? আমরা কেউ ভুলে যাইনি রে

Leave a Reply

Read previous post:
ভোট দিন ভেবে চিন্তে, শেষ দশ বছরের কথা চিন্তা করে

ইন্টারনেট এ একটি বিষয় খুব ভালভাবে পরিলক্ষিত হচ্ছে, আর সেটি হচ্ছে সাম্নের জাতিও ইলেকশন কে নিয়ে আবাল-ব্রিদ্ধ-বনিতা সবাই ঝাঁপিয়ে পড়েছেন...

Close